সফল মানুষের ব্যর্থতার গল্প

মাঝেমাঝে সফল মানুষের ব্যর্থতার গল্প পড়ি। বেশি অদ্ভুদ লাগে।

মরতে মরতে বেঁচে যাওয়া মানুষ গুলো আজ আইডল হয়ে আমাদের মাঝে।

বড় বড় মানুষের চেয়ে আমি ছোট মানুষ পছন্দ করি। তবে ছোট মানুষের গল্প শুনতে নেই।

এদের গল্প হয় একটু করুন; যতটা করুণ না ততটা করুণ বানিয়ে ফেলে।

এরা ভাবে দুনিয়ে এদের না।

এরা ভাবে এদের কিছু না।

এরা পারবে না! এসব মানুষ’কে অনেক কিছু বলতে ইচ্ছে হয় তবে বলা হয় না।

এরা বুঝে কম! বুঝতে না চাওয়া মানুষদের বুঝাতে চাওয়া এক ধরনের অপরাধ; এজন্য বলা হয় না…. কিন্তু বলতে চাই, তুমি একজন; সেটা তুমি!

তোমার মত করে পৃথিবীতে কাউকে বানানো হয়নি।

তোমার গল্প তোমার, তোমার গল্পের নায়ক তুমি, তোমার গল্প অন্যসব থেকে ভিন্ন!

ভিন্নরকম একটি গল্প তোমার মধ্যে আছে তবে তোমার সেটা আবিষ্কার করতে হবে।

‘আমি পারবে না’ মানে তুমি পারবে না; কারন তোমার নিজের প্রতি বিশ্বাস নেই।

‘আমি পারবো!’ মানেই তুমি পারবে! তবে তোমাকে না পারা পর্যন্ত, ‘আমি পারবো’ বলে বিশ্বাস করতে হবে।

জীবনে সবকিছু হুটহাট করে আবিষ্কার হয় না। সফলতার আসে ব্যর্থতার পরে। ব্যর্থতা সহজেই আসবে, সফলতা হুট করেই আসবে না; সফলতা অনেক দামী জিনিষ।

সে আসার জন্য আয়োজন করে আসবে।  মানুষের জন্য ‘পারবো না’ বলে কোন শব্দ আবিষ্কার হয়নি। মানুষকে গ্রাস করার মত পৃথিবীতে কেউ নেই।

প্রত্যেক সফল মানুষের গল্পের আগে ব্যর্থতার গল্প থাকে। ‘আমি পারবো না’ এর মানে হচ্ছে তুমি মাঠে নামার আগে, লড়াই করার আগে হার মেনে নেওয়া। .

নিজের কোম্পানি থেকে নিজেই বরখাস্ত হওয়া দুর্ভাগা ব্যক্তিটি পরবর্তীতে বিশ্বকে পাল্টে দেওয়া স্টিভ জবস হয়েছেন।

সাতাশ বছর নির্জন দ্বীপে কারাবাস করার পর ফিরে আসা লোকটি দেশের প্রেসিডেন্ট এবং নোবেল বিজয়ী নেলসন ম্যান্ডেলা হয়েছেন বিশ্বের বুকে।

চার বছর বয়স পর্যন্ত কথা বলতে না পারা, সাত বছর বয়স পর্যন্ত রিডিং পড়তে অক্ষম মানসিক প্রতিবন্ধি হিসেবে ধরে নেয়া বালকটি আজ পৃথিবীর বুকে আলবার্ট আইনস্টাইন নামে খ্যাত।

পেটে ভাত জোগাতে প্রিয় কুকুরটিকে ৫০ ডলারে বিক্রি করে দেয়া লোক, যার স্ত্রী অভাবের কারণে তাকে ছেড়ে দিয়েছিল সে আজকে সর্বকালের অন্যতম সেরা অ্যাকশন হিরো সিলভেস্টার স্ট্যালোন।

দু’পায়ে সাত বার সার্জারি করা ছেলেটি, সবাই যার ক্যারিয়ার শেষ ধরে নিয়েছিল সে ফিরে এসে নিজের দেশকে সামনে থেকে নেতৃত্ব দিয়ে দেশের সবচেয়ে সফল অধিনায়ক মাশরাফি বিন মর্তুজা।

একটা বাড়ি দাঁড় করতে দু’চার বছর সময়ের প্রয়োজন পড়ে কিন্তু ভেঙ্গে দিতে দু’চার দিনও লাগে না। কলমের সাইনে তুমি তোমার চাকরী ছেড়ে আসতে পারো তবে কলমের সাইনে কখনো চাকরী পাবে না।

প্রত্যেক সফল ব্যক্তি সফলতার আগে ব্যর্থতার গল্প বানায়। ব্যর্থ রচনার উপসংহার হচ্ছে সফলতা। পৃথিবীর বুকে সফল হওয়া মানুষগুলো আগে ব্যর্থ হয়েছে। একবার দু’বার নয়; বারবার। সফল ব্যক্তিরা মাঠ ছেড়ে পালানোর গল্প আমি কখনো শুনিনি। তারা মাঠে নেমে লড়াই করে। তারা একবার হারে, বারবার হারে; তবুও কখনো মাঠ ছেড়ে পালায় না। টম হপকিন্স বলেছেন, ‘আমি ততবারই সফল হই যতবার আমি ব্যর্থ হই এবং তারপরও চেষ্টা চালিয়ে যাই।’ সিলভেস্টার স্ট্যালোন পেরেছে, স্টিভ জবস পেরেছে, নেলসন ম্যান্ডেলা, মাশরাফি পেরেছেন আর তুমি পারবে না এমন কখনো হয় ! হতে পারে না ! মানুষ কখনো অন্যের কাছে হারে না, হারে সে নিজের কাছে। মানুষ অন্যের যতটা না ক্ষতি করতে পারে, তারচেয়ে বেশি ক্ষতিটা নিজেরই করে।

সফলতা হচ্ছে ব্যর্থতা দিয়ে গড়া উচু সিঁড়িটা। ব্যর্থতা দিয়ে ধাপে ধাপে গড়া হয় সফলতার সিঁড়ি। তুমি একবার ব্যর্থ হয়েছো মানে, সফলতার সিঁড়িটা একটি ধাপ সম্পূর্ন করেছে। তুমি বারবার ব্যর্থ হয়েছো মানে তোমার সফলতার সিঁড়ি প্রায় দাঁড়িয়ে গিয়েছে, আর কিছুটা পথ পেরুলেই তা সম্পূর্ন হয়ে যাবে; তবে শর্ত আছে! হাল ছাড়া যাবে না কখনো।

Leave a Comment